Categories
editorial

Editorial-November-2022

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৬শে কার্তিক, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 13th November 2022

পুজোয় মুদ্রিত সংখ্যা প্রকাশিত হবার পর আমরা বিরতি নিয়েছিলাম কিছুটা। পুজো সংখ্যা যেভাবে সমাদৃত হয়েছে মানুষের কাছে, তাতে আমরা আপ্লুত। লেখক, পাঠক সবাইকে ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’র তরফ থেকে অকুন্ঠ ভালোবাসা জানাই। মুদ্রিত পত্রিকার মান ও বিষয়বস্তুতে যাতে আরো বৈচিত্র আনা যায়, সে জন্য আমরা পরবর্তী পুজো সংখ্যার পরিকল্পনাও শুরু করেছি এখন থেকেই। পাশাপাশি প্রকাশ পেলো নভেম্বর মাসের অনলাইন সংখ্যাটিও। প্রতিটি নতুন বছরে্র শুরুতেই আমরা অনলাইন সংখ্যাটিকেও একদম নতুনভাবে সাজিয়ে ফেলি। আগামী বছরও তার ব্যতিক্রম হবে না। কাজ চলছে তারও।

শীতের এই অনুভূতিপ্রবণ দিনগুলোয় এগিয়ে আসছে বই, লিটল ম্যাগাজিন সংক্রান্ত বিভিন্ন মেলা। সবার সঙ্গে মেলামেশা, আড্ডা, বই-পত্রিকা নিয়ে মাঠে বসে পড়া চলতেই থাকবে। ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’ও স্বপ্ন দেখে এই মেলাগুলোয় নিজস্ব একটা ঘর ও ঘরানা নিয়ে উপস্থিত থাকার। পাঠক ও গুণীজনের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ যে তাঁরাই আমাদের এই স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছেন। আমরা সেই আগামীর দিকে তাকিয়ে।

সকলে ভালো থাকুন। নীরোগ থাকুন। অনলাইন নভেম্বর সংখ্যা আপনাদের মতামতের অপেক্ষায়…

Categories
editorial

Editorial-September-2022

সম্পাদকীয়

রবিবার, ১লা আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 18th September 2022

শারদোৎসবের সূচনায় ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’র পাঠক ও লেখকদের জানাই শুভেচ্ছা। প্রকাশিত হয়েছে আমাদের প্রথম মুদ্রিত পুজো সংখ্যা। এখনো অবধি পাঠক যেভাবে কাছে টেনে নিয়েছেন আমাদের মুদ্রিত সংখ্যাটিকে, আমরা আপ্লুত। পরবর্তী পুজো সংখ্যা নিয়ে ভাবার সাহস সঞ্চয় করতে পারছি। প্রতিটি অনলাইন সংখ্যাতে যেরকম বিষয় বৈচিত্র্য রাখার চেষ্টা করেছি বরাবর, সেভাবেই সাজানো হয়েছে মুদ্রিত সংখ্যাটিকেও। তবে আপনাদের মতামতও কাম্য। আমাদের জানান পুজো সংখ্যা নিয়ে আপনাদের প্রতিক্রিয়া, মতামত। আমাদের মেল বা ফোন করতে পারেন আপনার সুচিন্তিত বক্তব্য জানিয়ে।

পাশাপাশি আমরা অনলাইন সংখ্যাটিকেও এই মাসে প্রকাশ করছি প্রাক-শারদ সংখ্যা হিসেবে। গত সপ্তাহে আমরা হারিয়েছি আমাদের প্রিয়জন, সদাহাস্য-মেধাবী অমিতাভ প্রহরাজকে। সেপ্টেম্বর মাসের এই অনলাইন সংখ্যাটি আমরা তাঁকেই উৎসর্গ করলাম। পুজোয় সকলে সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন।

Categories
editorial

Editorial-August-2022

সম্পাদকীয়

রবিবার, ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 14th August 2022

আশাকরি ভালো আছেন সবাই। আমাদের প্রিয় কবি প্রবুদ্ধসুন্দর করের পর আমরা আজই হারালাম আমাদের আরেক প্রিয় মানুষ ‘কবিতাসীমান্ত’ পত্রিকার প্রাণপুরুষ শ্রদ্ধেয় দীপেন রায় মহাশয়কে। তাঁর স্থির সৌম্য ব্যক্তিত্বটি বড় আকর্ষণীয় ছিল। এই দুই মানুষের আকস্মিক প্রয়াণে আমরা শোকস্তব্ধ। বাংলা কবিতা চিরস্মরণীয় করে রাখবে তাঁর এই দুই কৃতি সন্তানকে— এই আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস।

আগেই আমরা জানিয়েছি আমাদের পুজো সংখ্যা এবার মুদ্রিত আকারে আসছে। আশাকরি আগামী সপ্তাহেই তা প্রকশ পাবে। এ আমাদের কাছে একটি খুবই আনন্দ সংবাদ। আশাকরি আপনারাও তাকে সাদরে গ্রহণ করবেন।

স্বাধীনতা দিবসের ৭৫ বছরের প্রাককালে দাঁড়িয়ে আছি আমরা। ২০০ বছরের পরাধীনতার গ্লানি মুছে ফেলে মাত্র ৭৫ বছরেই আমরা ভুলতে বসেছি সেই স্বাধীনতার অর্থ। সামাজিক, অর্থনৈতিক অসাম্য সর্বত্র এতটাই প্রকট যে আজও আমাদের খুঁজতে বসতে হয় স্বাধীনতার যথার্থতা। কিছু কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ত্বদের চরম নির্লজ্জতা বারবার স্বাধীনতা দিবসের প্রাসঙ্গিকতাকে একটা প্রশ্নচিহ্নের সামনে এনে দাঁড় করিয়ে দেয়। আমরা কি সত্যিই এই স্বাধীনতা চেয়েছিলাম? অবক্ষয় যেন যতদিন যাচ্ছে ততবেশি প্রকট হয়ে হচ্ছে আমাদের চতুর্দিকে। চতুরতা এবং চাটুকারিতা আবার এ কোন অন্ধকারের সামনে এসে দাঁড় করাচ্ছে সমগ্র মানবজাতিকে?

তবু ভালো থাকবেন সবাই। আসুন না আরেকবার আমরা রুখে দাঁড়াই। ইনকিলাব জিন্দাবাদ। বিল্পব দীর্ঘজীবী হোক…

Categories
editorial

Editorial-July-2022

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৫শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 10th July 2022

যদিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা আগেই জানিয়েছি, কিন্তু ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’র পাতায় সরাসরি এই সুখবরটি আবারও ভাগ করে নিতে চাই। এই প্রথম আমাদের, আপনাদের এই প্রিয় আন্তর্জাল পত্রিকা মুদ্রিত সংখ্যা হিসেবে প্রকাশ হতে চলেছে। অজস্র বিভাগ ও মনোগ্রাহী কিছু রচনা নিয়ে আমরা পুজো সংখ্যাটিকেই পত্রিকার প্রথম মুদ্রিত সংখ্যা করতে চলেছি। আমাদের অনেকগুলি পরিকল্পনার মধ্যে এই পদক্ষেপের মাধ্যমে আমরা আরো এক ধাপ এগোবার চেষ্টা করলাম।

তবে মন খারাপ হয়ে যায় যখন দেখি দলাদলি, পিছন থেকে টেনে ধরা এসব কিছুই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে লেখালিখির আসল জায়গাটুকু বাদ দিয়ে। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অনেকেই এই কাজে শামিল হয়ে উঠছেন। দিনের শেষে, জীবনের শেষে সব চলে গিয়ে আমাদের প্রত্যেকের কাজগুলোই রয়ে যাবে। মানুষ মনে রাখবেন যাবতীয় উল্লেখযোগ্য লেখনী, মনে দাগ কেটে যাওয়া পত্রিকাসমূহকেই। আমরাও এই কাজের যজ্ঞে শামিল বরাবর। পাশে আপনাদেরও চাই, যেন পাইও সব সময়।

‘আমাদের অভ্যন্তরে স্রোতস্বিনী আছে, সেতু নেই’

– পূর্ণেন্দু পত্রী

সত্যিই আমাদের মধ্যে সেতুর বড্ড অভাব। যে যার মতো করে অন্যের সেতু ভাঙতেই আমরা আগ্রহী। সেতুবন্ধন করে আরো অনেক দূরের রাস্তা হাঁটতে আমরা কেউই চাই না। কিন্তু ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’ সব সময় চেষ্টা করে চলবে প্রত্যেককে সঙ্গে নিয়ে এই সেতু গড়ে তোলার। তারই ফল হলো আমাদের জুলাই মাসের এই সংখ্যা। এই বিশেষ কবিতা সংখ্যায় আমরা খুঁজে পেয়েছি এমন সব কবিদের, যাঁরা আমাদের কাছে হয়তো ততো পরিচিত নন, কিন্তু বলিষ্ঠ তাঁদের কলম। এই পত্রিকা বরাবর চেষ্টা করে যাবে এমন সব শক্তিশালী অথচ অন্তরালে থাকা কবিদের তুলে আনার। বাকি দায়িত্ব, পাঠক আপনাদের।

Categories
editorial

Editorial-June

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৮শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 12th June 2022

দু’বছর অতিক্রান্ত করে তৃতীয় বছরে পা রাখতে পেরে আমরা ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’ পরিবারের সমস্ত সদস্য ভীষণ আপ্লুত। যাঁদের ছাড়া এ কাজ এতোদিন ধরে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হতো না, সেই পাঠককুলকে আমাদের ভালোবাসা। বহু অগ্রজ লেখক, বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আমরা চলার পথে পাশে পেয়েছি, তাঁদের পরামর্শে আমরা আরো সাবালক হতে পেরেছি। যাঁরা লেখা দিয়েছেন, দিতে চেয়েছেন বা এখনো চাইছেন, তাঁদের প্রত্যেককে আমাদের শ্রদ্ধা। তাঁরা না থাকলে আমাদের পত্রিকার এই মান আমরা বজায় রাখতে পারতাম না। আগামীতেও এভাবেই আমরা কিছু ভালো কাজের ছাপ রেখে যেতে চাই। কবি শঙ্খ ঘোষ লিখেছিলেন, ‘এক দশকে সংঘ ভেঙে যায়’…। কিন্তু আমাদের সংঘ আমরা আরো মজবুত করে বহুদূর এগিয়ে নিয়ে যাবার স্বপ্ন দেখি, তাই নানারকম পরিকল্পনা আমরা সব সময়ই করতে থাকি। আর সেসবই পাঠক, আপনাদের পরামর্শ মেনেই।

সেইসব মিলিত পরামর্শেরই আরেক ফসলের খবর খুব শিগগিরই আমরা সামাজিক মাধ্যমে জানাবো। তবে প্রতি মাসের এই প্রচেষ্টার ফল আপনাদের কেমন লাগছে, সেই বিষয়ে প্রতিটি বিভাগের লেখার নিচে কমেন্ট করে অবশ্যই জানান। আপনাদের বই, পত্রিকা বা লেখালিখি সংক্রান্ত আর যে কোনো কিছুর প্রচারের জন্যও আমরা রয়েছি আপনাদের পাশে, সে বিষয়ে যোগাযোগ করতে পারেন আমাদের ওয়েবসাইটে দেওয়া ফোন নাম্বারে।

জুন মাসের এই সংখ্যাটি তুলে দিলাম আপনাদের মোবাইল, কম্পিউটার বা ল্যাপটপে। এবার তার বেড়ে ওঠার দায়িত্ব আপনাদের হাতে। সকলে সুস্থ থাকুন, পাঠে থাকুন, সৃষ্টিতে থাকুন।

Categories
editorial

Editorial-May

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 8th May 2022

এই সংখ্যা আমাদের গর্বের সংখ্যা, আনন্দের সংখ্যা আমরা দু’বছর পেরিয়ে পা রাখলাম তৃতীয় বছরে অতিমারীর কঠিন সময়ে নিজেদের মন ভালো রাখতে, পাঠকদের মনে শুশ্রুষা দিতে শুরু করেছিলাম ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’ আজ সে অনেকের ভালোবাসায় ভরে উঠেছে বহু লেখক, পাঠকের সমাদর পেয়েছে আমরা সাহস পেয়েছি নতুন কিছু ভাবার নতুন বিভাগ শুরু করার এবারের সংখ্যাটিও তার ব্যতিক্রম নয় অগ্রজ-অনুজ-সতীর্থ কবি, গদ্যকার সকলেই আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন মতামত দিয়ে সমৃদ্ধ করেছেন, প্রশ্রয় দিয়েছেন আজ ফিরে তাকালে এই দু’বছরের শ্রম, চিন্তা সব কিছুই সার্থক মনে হয় আমরা আরো এগোতে চাই। পাশে চাই প্রত্যেককেআগামী দিনগুলোয় আরো চমকপ্রদ কিছু পরিকল্পনা রয়েছে, সেগুলি যথাসময়ে আমরা প্রকাশ করব। আর, সেই পরিকল্পনাগুলো শুধু আমাদের ভাবনা নয়, আপনাদের নানা মতামতকে মিলিয়েই আমরা সেই কাজে হাত দিয়েছি। আপনারা এভাবেই আরো এগিয়ে যাবার জোর দিন আমাদের।

আজ শুরুর দিনগুলোর কথা ভাবলে অনেক কিছু ভিড় করে আসে মনে অজস্র খসড়া, নামকরণ নিয়ে ভাবনাচিন্তা বিভাগ নির্বাচন একটা বড় পর্ব ছিল তবে ২০২০ সালের পুজো সংখ্যা ছিল আমাদের কঠিন পরিশ্রমের ফসল আমাদের গোটা টীম খুব তৃপ্তি পেয়েছিল যখন সেই কাজটির প্রশংসা সবাই একবাক্যে করেছিলেন অতো গুণীজনকে এক সূচীতে আনা সহজ ছিল না হয়তো, কিন্তু কেউই ফেরাননি আমাদের তবুও হয়তো সবাইকে আমরা কাছে টানতে পারিনি, বেশ কিছু ত্রুটি অবশ্যই রয়ে গেছে আমাদের নিজেদের তাই অনেকে সাড়া দেননি, আজও আমাদের দূরে সরিয়ে রেখেছেন আমরা শুধরে নেবো কথা দিলাম

অতিমারীর ভয়াল রূপের দিনগুলো থেকে শুরু হয়েছিল ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’র পথ চলা আজ সেই আশঙ্কার ছায়া অনেকটাই দূরে সরে গেছে তাই হয়তো কখনো আন্তর্জালের বাইরেও সবাই মিলে একদিন কবিতা পড়ব, শুনব, হইহই করব খুব আজ এই ওয়েব ম্যাগাজিনের তৃতীয় জন্মদিনে সেই ইচ্ছেটুকু সাজিয়ে রাখলাম সবার কাছে সকলে ভালো থাকুন, আমাদের পাশে থাকুন আপনারা আছেন বলেই ‘আমরা রইলাম’…

Categories
editorial

Editorial-April

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৬শে চৈত্র, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | Sunday, 10th April 2022

দ্বিতীয় বর্ষপূর্তির দোরগোড়ায় ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’। গত মাসে বইমেলা থাকার কারণে প্রকাশ পায়নি এই ওয়েব ম্যাগাজিন। কিন্তু পাঠকদের অপেক্ষা আর অনুরোধ আমাদের কাছে নানাভাবে এসে পৌঁছেছে। এই মাস থেকে তাই আবারও নিয়মিত প্রকাশ পাচ্ছে পাঠকপ্রিয় এই পত্রিকা। আগামী দিনগুলোয় বেশ কিছু অন্য রকম পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের পত্রিকা সংক্রান্ত, সে সব যথা সময়ে আমরা তুলে ধরব ফেসবুক ও পত্রিকার মাধ্যমে। যার মধ্যে পাঠকদের দীর্ঘদিনের কিছু দাবিকেও আমরা অগ্রাধিকার দিয়েছি।

এই বছরের বইমেলা আমাদের সকলের কাছে অক্সিজেনসম ছিল। বহু বই প্রকাশ পেয়েছে, লেখক-পাঠকের সাক্ষাৎ ঘটেছে, চমৎকার কিছু সময় কাটিয়েছি আমরা। অতিমারীর ভয়ঙ্কর দিনগুলোকে পিছনে ফেলে আবার পুরনো আমেজ ফিরে পেয়েছি অনেকখানি। তবু, লেখালিখির জগতে মাঝেমাঝেই পরস্পরের প্রতি বিষবৎ কিছু প্রতিক্রিয়া, ভাষার অপব্যবহার দেখে খারাপ লাগে। লেখালিখির জন্য তৈরি আমাদের মনন কীভাবে যেন মাঝেমাঝেই সব কিছু ভুলে তার উগ্র রূপ নিয়ে সবাইকে চমকে দেয়। আমাদের মনে পড়ে না কবি ভাস্কর চক্রবর্তীর সেই লাইনগুলি-

কে না বোঝে বন্ধুত্ব ব্যাপারটা?
কবিতা, আমি বলছি-
মানুষকে আনন্দে বাঁচিয়ে রাখার শিল্পই হচ্ছে কবিতা।
কবিতা লেখা সত্যিই সেরকম সহজ নয় যেরকম ভাবেন আপনি।
না, সিগারেট ধরাবেন না
সাদা একটা কাগজে লিখুন: বন্ধু
লিখুন: বন্ধু বন্ধু বন্ধু।
আমরা হতভাগা।
বন্ধুত্ব দিয়ে আমাদের সম্পর্ক শুরু হয়
শেষ হয় খিস্তিখেউড়ে।

Categories
editorial

Editorial-February

সম্পাদকীয়

রবিবার, ৩০শে মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | Sunday, 13th February 2022

ফেব্রুয়ারি ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার মাস, আবার এই মাস বসন্তের মাসও, ভালোবাসাবাসির মাস, সঙ্গে থাকার মাস কিংবা হয়তো ছেড়ে চলে যাবারও! বাংলা ভাষা অনেক ক্ষেত্রেই আজ অবহেলিত, অনেকে বাংলা বলতে লজ্জা পান। সন্তান বাংলার চেয়ে ইংরেজিতে বেশি স্বচ্ছন্দ, সেটা জানাতেই আজকের পিতামাতা-রা গর্ব বোধ করেন। রফিক, জব্বার, শফিউল, বরকত-সহ সেদিনের সহযোদ্ধারা আজকের দিনের এই চিত্র দেখলে সম্ভবত আবারও অন্য এক আন্দোলন শুরু করতেন। এই সময়ে দাঁড়িয়ে এমন সব মানুষের খুব অভাব টের পাওয়া যায় চারিদিকে তাকালে। তবু ভরসার কথা, বাংলা ভাষাকেই অবলম্বন করে এখনো লেখা হয় সাহিত্য। এই ভাষাকেই কেন্দ্র করে চলে নানা মেলা, সম্মেলন, পাঠ। এই ভাষার যত্নে আরো অঙ্গীকারবদ্ধ হতে হবে আমাদের, এ আমাদের আদরের ভাষা, গর্বের ভাষা, আমাদের প্রেমের ভাষা।

এই মাসের হাওয়ায় অন্য গন্ধ আছে, মন এলোমেলো করা দিন ভেসে আসে রোজ। ঘন রোদের দুপুরে আচমকা পৃথিবীটা শূন্য মনে হয়, ভিড় করে আসে অজস্র মুহূর্তের বাহার। বাড়ি ফিরে কেউ কলম টেনে নেয়, অথবা কেউ ঘুমের ওষুধ… এই মাস দূরে ঠেলে দেয়, কিংবা কাউকে আশ্রয় দেয় কাছে।

দশজন বিশিষ্ট কবির প্রেমের কবিতার পুনর্মুদ্রণে সাজানো আমাদের এবারের ‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’র আয়োজন। সঙ্গে রয়েছে বাকি নিয়মিত বিভাগগুলিও। নতুনভাবে শুরু হচ্ছে কিছু বিভাগ। সব মিলিয়ে ভালোবাসা জমে উঠুক কবিতা, গল্প, গদ্য নিয়ে। ভাষা তৈরি হোক বেঁচে থাকার, অধিকার বজায় রাখার।

কবি জয়দেব বসু’র একটি কবিতা এই ভালোবাসার মাসে, এই ভাষার মাসে পড়ে ফেলা যাক-

২১ শে ফেব্রুয়ারি বা ১৯শে মার্চ : তোমাকে

 

তুমি দেবী চৌধুরানী, আমি ব্রজেশ্বর

আমি তোমার আশকারাতে চণ্ডাল, বর্বর

 

তুমি আমার গোসল-পানি, আমি কানের দুল

তুমি আমার বেগুন দিয়া ইলশা মাছের ঝুল

 

তুমি আমার নারায়ণগঞ্জ, আমি রমনার মাঠ

আমি সারেং, অপেক্ষাতে তুমি স্টিমার-ঘাট

 

তুমি আমার কুণ্ডলিনী, আমি তোমার পীর

তুমি হইলে জয়নাব আর আমি যুধিষ্ঠির 

 

ভালোবাসবো সুফি মতে, বিয়ে করবো কন্ঠী

বদল করে, যদি আমায় পুরুষ ভাবো অন্তিম

 

কে ঈশ্বর? পাত্তা দিই না, অন্ন আজো ভূমা

ফজর কালে সোহাগ করি, আহ্নিকে দিই চুমা

 

তোমায় দেখে অন্ধ ভোলা, উন্মাদ অ্যান্টনি

ঈশ্বরেরও অধিক তুমি, ঈশ্বরী পাটনী

Categories
editorial

Editorial-January

পর্ব ২
পর্ব ৫
গত সংখ্যার পর

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৪শে পৌষ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | Sunday, 9th January 2022

নতুন বছরের প্রথম সংখ্যা প্রকাশ পেলো। অগ্রজ চার জন কবির গুচ্ছ
কবিতা দিয়ে এই সংখ্যা শুরু করলাম আমরা, যা এই জানুয়ারি সংখ্যার
বিশেষ আকর্ষণ। তবে অতিমারি যেভাবে আবার থাবা ফেলেছে আমাদের
প্রত্যেকের যাপনে, আবার আশঙ্কার দ্বিধায় ভুগছি আমরা। গত বছর
বইমেলা না হবার খারাপ লাগা এই বছরের মধ্যে দিয়ে কেটে যাবার যে আশা
দেখা দিয়েছিল, তা আবার তলিয়ে যেতে শুরু করছে ক্রমশ। প্রকাশক,
বিক্রেতা-সহ অনেকেরই ক্ষতির তালিকা দীর্ঘতর হতে শুরু করেছে।
আমাদের নিজেদের গা-ছাড়া মনোভাব নিজেদেরই ক্ষতি ডেকে আনছে
বারেবারে।
তবু, প্রকাশিত হচ্ছে অনেক কবিতার বই, বিভিন্ন উপন্যাস-গল্পগ্রন্থ,
সুচারু পত্রিকাসমূহ। এই আলো নিয়েই আমাদের বেঁচে থাকা। গত কয়েক
বছর ধরে তলিয়ে যেতে যেতে বারবার আমরা আঁকড়ে ধরেছি মন ভালো
রাখার যে কোনো ওষধি। আমাদের এই ওয়েব ম্যাগাজিনও সেই পথেই
শামিল।

কবি মল্লিকা সেনগুপ্ত লিখেছিলেন-
‘ঝরনা যখন লাফ দিয়েছে কুয়াশাগহ্বরে
সবুজ পাহাড় ডাক পাঠাল সোহাগচাঁদের ঘরে
নোকালিকাই জলধারার রুপোলি উচ্ছ্বাসে
রোদ এসেছে বিষাদঢাকা মানুষগুলির পাশে’…
আমরাও আজ এই রোদটুকুর অপেক্ষায়। সকলে সুস্থ থাকুন আর ‘হ্যালো
টেস্টিং বাংলা কবিতা’র এই সংখ্যাটির পাঠশেষে আমাদের জানান
আপনাদের সুচিন্তিত মতামত।

Categories
editorial

Editorial-December

পর্ব ১
পর্ব ৪
গত সংখ্যার পর

সম্পাদকীয়

রবিবার, ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | Sunday, 12th December 2021

‘হ্যালো টেস্টিং বাংলা কবিতা’র এই বছরের শেষ সংখ্যা প্রকাশিত হলো। নতুন বছরে আরো কিছু আকর্ষণ নিয়ে আসা যায় কীভাবে, সেই চেষ্টা আমাদের নিরন্তর চলছে। কবিতা ও কবিতা সংক্রান্ত লেখালিখিকে ঘিরে আমাদের এই সামান্য আয়োজনে আপনাদের প্রত্যেকের ভালোবাসা আমরা আজও পেয়ে চলেছি ক্রমাগত।

কবিতা লিখে কী হয়? এর স্পষ্ট কোনো উত্তর আজ অবধি নেই। মনের আরাম, ভালো লাগার অনুভূতি… সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় লিখেছিলেন-

“আমি চাই স্কচ, সাদা ঘোড়া, নির্ভেজাল ঘৃতে পক্কমুর্গীর দু ঠ্যাং শুধু, আর মাংস নয়- কবিতা লিখেছি তাই আমার সহস্র ক্রীতদাসী চাই- অথবা একটি নারী অগোপন, যাকে আমি প্রকাশ্য রাস্তায় জানু ধরে দয়া চাইতে পারি।”…

অকপট স্বীকারোক্তি। অনেকেই মনে মনে হয়তো এরকমই ভাবেন, চেয়েও থাকেন। তাছাড়া খ্যাতির মোহ তো থাকেই। তবু… শীতের বিকেলে আলগা হাওয়া দিলে, দুপুরের নির্জন রোদে কিংবা পরস্পরের হাত ধরে কুয়াশা নেমে আসা মাঠের দিকে মিলিয়ে যেতে যেতে কবিতার লাইন আচমকা মাথায় চলে আসে। অনেকে নিজেরাই কবিতা হয়ে ওঠেন… এইসব মায়া, সম্পর্কের ভেঙে যাওয়া পংক্তিগুলো আস্তে আস্তে জমে ওঠে সাদা পাতায়। এই দায়, এই বয়ে চলায় সামিল আমরা প্রত্যেকে।

“শুধু কবিতার জন্য এই জন্ম, শুধু কবিতার জন্য কিছু খেলা, শুধু কবিতার জন্য একা হিম সন্ধেবেলা ভুবন পেরিয়ে আসা,”…