Hello Testing Bangla Kobita

প্রতি মাসে দ্বিতীয় রবিবার

Advertisement

3rd Year | 5th Issue

রবিবার, ১লা আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | Sunday, 18th September 2022

ধা রা বা হি ক । পর্ব ৬

সৈয়দ কওসর জামাল

jamal_sm

স্যুররিয়ালিস্ট আন্দোলন ও ফরাসি কবিতা

‘স্যুররিয়ালস্ট বিপ্লব’ (Le RévolutionSurrealiste) পত্রিকার ডিসেম্বর ১৯২৯ সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল আঁদ্রে ব্রতোঁর স্যুররিয়ালিজম-এর দ্বিতীয় ইস্তাহার বা ম্যানিফেস্টো।ইস্তাহার ছাড়াও আরও অনেক উল্লেখযোগ্য রচনা এই সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে। যেমন ত্রিস্তঁ জারা-র কবিতা। দাদাবাদের প্রবক্তা জারা এখন স্যুররিয়ালিজম-এ তাঁর আস্থা জ্ঞাপন করেছেন। তাঁর সাম্প্রতিক কবিতা L’HommeApproximatifথেকে অনেক কবিতা এখানে দিয়েছিলেন। জারার এই কবিতাগুলোকে অনেকেই উচ্চ স্তরের স্যুররিয়ালিস্ট কবিতা বলে মনে করেছেন। কবিতা লিখেছিলেন বেনিয়ামিন পেরে। আর ছিল সালভাদর দালির ছবি, কারণ আগের মাসেই দালির ছবির প্রদর্শনী হয়ে গেছে। Le RévolutionSurrealiste পত্রিকায় এই প্রথম দালির ছবি ছাপা হয়েছে। এ ছাড়া ছাপা হয়েছিল ফিল্মেরচিত্রনাট্য—Un ChienAndalou (একটি আঁদালুসীয় কুকুর), যা সেই সময় খুবই বিতর্ক তৈরি করেছিল। দর্শকদের মনে হিস্টেরিয়া তৈরি করে দেওয়ার পক্ষে ছবিটি ছিল যথেষ্ট। ছবিটি বানিয়েছিলেন সালভাদর দালি ও লুই বুনুয়েল। ছবিটিকে বলা হয় প্রথম স্যুররিয়ালিস্ট ছবি। বেলজিয়ান চিত্রশিল্পী রনে মাগ্রিত লিখেছিলেন প্রবন্ধ, যার বিষয় ছিল শব্দ ও দৃশ্য চিত্রকল্পএর সম্বন্ধ। আরাগঁ লিখেছিলেন ১৯৩০ সালের মুখবন্ধ নামের একটি প্রতিবেদন যেখানে তিনি প্রশ্ন করেছেন—‘প্রেমের ওপর আমরা কী ধরনের প্রত্যাশা রাখি?’

        ডিসেম্বর ১৯২৯ এর সংখ্যাটিই স্যুররিয়ালিস্ট বিপ্লব-এর শেষ সংখ্যা। এর পর নতুন পত্রিতা প্রকাশ করেছেন ব্রতোঁ। নাম দিয়েছেন  Le Surréalisme au Service de la Révolution। নতুন পত্রিকা শুরু হয়েছে একটি টেলিগ্রাম প্রকাশের মধ্য দিয়ে। স্যুররিয়ালিস্টরা এটি পেয়েছেন মস্কোর আন্তর্জাতিক বিপ্লবী ব্যুরোর কাছ থেকে—“দয়া করে এই প্রশ্নটির উত্তর দিন: সাম্রাজ্যবাদ যদি সোভিয়েতদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে, তবে আপনাদের অবস্থান কী হবে?”

        পত্রিকায় তার উত্তরও দেওয়া হয়েছে—“কমরেডগণ, সাম্রাজ্যবাদ যদি সোভিয়েতদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে, তবে ফ্রান্সের কম্যুনিস্ট পার্টি, তৃতীয় আন্তর্জাতিকের নির্দেশ হবে আমাদের অবস্থান।” এখন পর্যন্ত কোনো কম্যুনিস্ট দলই স্যুররিয়ালিস্টদের ভালো চোখে দেখেনি, কিন্তু এই টেলিগাম থেকে অন্তত এই আশ্বাসটুকু মেলে যে মস্কো তাঁদের অস্তিত্বকে স্বীকৃতি দিচ্ছে।

        স্যুরিরিয়ালিস্টদের অন্তর্দ্বন্দ্বের প্রেক্ষিত মনে রেখে এবং অনেকের সঙ্গে ব্রতোঁর বিচ্ছেদ হওয়ায় এই উদ্যোগ স্বাভাবিক ছিল যে  ব্রতোঁর সঙ্গে এখন কারা আছেন তা জেনে নেওয়া। এই পত্রিকায় একারণেই ছাপা হয়েছে আঁদ্রে ব্রতোঁর সঙ্গে যাঁরা আছেন তাঁদের স্বাক্ষর। স্বাক্ষর করেছেন মাক্সিম আলেকজান্দ্র, রনে ক্রভেল, সালভাদর দালি, পল এল্যুয়ার, মাক্স আর্নস্ট, মারসেল ফুরিয়ের, কামিল গোমান, জর্জ মাল্কিন, পল নুজে, বেনিয়ামিন পেরে, ফ্রাঁসিস পঁজ, মারকো রিসটিশ, জর্জ সাদুল, ইভ তেগি, আঁদ্রে তিরিয়ঁ, ত্রিস্তাঁ জারাও আলবের ভালেত্যাঁ।

        দ্বিতীয় স্যুররিয়ালিস্ট ম্যানিফেস্টো প্রকাশের পর স্যুররিয়ালিজম অনুসারী লেখক-শিল্পীদের অন্তর্দ্বন্দ্ব যে পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছিল, তার প্রেক্ষিতে নতুন করে নিজেদের মধ্যে ঐক্য দেখানোর তাগিদ ছিল। আঁদ্রে ব্রতোঁ, রনে শার ও পল এল্যুয়ার এক নতুননিরীক্ষায় মেতেছেন। ১৯৩০ এর মার্চে তাঁরা ছুটি কাটাতে গেছেন আভিনঁতে, এবং সেখানে রচনা করেছেন সমবেত কবিতা—প্রতিটি কবিতাতেই তিনজনের হাতের স্পর্শ; আর এই কবিতাগুলো তাঁরা RalentirTravauxনামে গ্রন্থভুক্ত করেছেন। পথে একটা জায়গায় রাস্তা নির্মাণের চিহ্ন দিয়ে যানবাহনের ধীর গতির নির্দেশ ছিল। কাব্যগ্রন্থটির নাম একারণেই ‘ধীরে, নির্মাণকাজ চলছে’। এই কবিতাগুলোর মধ্য দিয়ে তাঁরা তাঁদের কাব্যিক ব্যক্তিস্বাতন্ত্রকে বিসর্জন দিয়েছেন। খুব দ্রুত রচিত এই কবিতাগুলোর জন্য তাঁরা সময় দিয়েছেন ৫ দিন মাত্র। প্রতি কবিতাতে একজন কবি অন্তত দুটি লাইন রচনা করবেন এই ছিল শর্ত। একটি কবিতা তিন পঙক্তির, আর সব চেয়ে দীর্ঘ কবিতাটি ২৫ পঙক্তির। স্যু৫ররিয়ালিস্ট রীতি অনুযায়ী প্রতিটি কবিতা ‘অটোমেটিক’ পদ্ধতিতে রচিত।  তিন পঙক্তির কবিতা—

        “তোমাকে অনুসরণ করা কষ্টকর

        আমি উত্তেজিত করে দিই দুই ঠোঁট

        আগুন ধরিয়ে দিই আমি স্তব্ধতায়।”

কবিতাটির নাম ‘হাত-পা বাঁধা’। আর একটি কবিতা ‘প্রেমের পরিবেশ’—

        “বালির মধ্যে তোমাকে কবর দেব

        আর জোয়ার তোমাকে খুঁড়ে তুলে আনবে

 

        অন্ধকারের জন্য স্বাধীনতা

 

        আমি তোমাকে শুষ্ক করব তোমার চুলের

        রোদে যেখানে আটকে আছে ফিনিক্স পাখি

 

        শিকারের জন্য স্বাধীনতা

এই সম্মিলিত কাব্যরচনার মধ্য দিয়ে তাঁদের ঐক্য তুলে ধরার খুব প্রয়োজন ছিল সেই সময়।    

        নতুন পত্রিকার প্রথম সংখ্যার উল্লেখযোগ্য রচনা সোভিয়েত কবি মায়াকভস্কির আত্মহত্যা প্রসঙ্গে আঁদ্রে ব্রতোঁর প্রতিবেদন। মায়াকভস্কিএমনএকজনকবিযিনিযিনি প্রলেতারিয়েত সাহিত্যের ক্ষুদ্র সীমানাকে ভেঙে প্রশস্ত করেছেন। ব্রতোঁ লিখলেন—“ মায়াকভস্কি এখন মৃত, আর আমরাও তিনি যে আধ্যাত্মিক ও নৈতিক অবস্থান গ্রহণ করেছিলেন তাকে দুর্বল হতে দিতে রাজি নই…সংগ্রামরত প্রলেতারিয়েতের উৎসাহী জীবন, নিজের মনের পশুর কাছেই মনের ছত্রখান হয়ে যাওয়া, আমাদের কাছে এটা খুবই মূর্খের কাজ হবে যদি এর যেকোনো একটা নাটকে অংশ নিই। এই ক্ষেত্রে আমাদের কাছ থেকে কোনো ছাড় আশা কোরো না।” মায়াকভস্কির প্রতি স্যুররিয়ালিস্টদের ছিল গভীর শ্রদ্ধা। তাঁরা তাঁকে বিপ্লবী কবি বলে মনে করতেন, কিন্তু যিনি তাঁর কাব্যধারণা ও প্রচারের (প্রোপ্যাগান্ডা) কৃত্রিম ধারণার মধ্যে কোনো সমঝোতা করেননি।

        স্যুররিয়ালিস্টদের এই পত্রিকায় অনেকগুলো ছবি ছাপা হয়েছে দালি ও বুনুয়েলের দ্বিতীয় ফিল্ম L’Age d’Or (স্বর্ণযুগ)-এর। তাঁদের প্রথম ফিল্মের চেয়ে এই ফিল্মটি আরও বিতর্কিত। ছবিটি দেখার পর লোকেরা এত মারামারি করেছে নিজেদের মধ্যে যে পুলিসকে হস্তক্ষেপ করতে হয় এবং পুলিস ছবিটি বন্ধ করে দেয়। স্যুররিয়ালিজম-এ দালির যোগদানের ফলে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে সমালোচনার প্যারানোইয়্যাক ধারা। আঁদ্রে ব্রতোঁ ১৯৩৪ সালে ব্রাসেলস-এ এক বক্তৃতায় বলে ছেং দালির এই সমালোচনা পদ্ধতি চিত্রকলা, কবিতা, সিনেমার ক্ষেত্রে খুবই প্রযোজ্য এবং এর প্রয়োগ করা হতে পারে যেকোনো স্যুররিয়ালিস্ট বিষয়ের নির্মাণে—ফ্যাশন, ভাস্কর্য, চিত্রকলার ইতিহাস, এমনকি, প্রয়োজনে যেকোনো ধর্মীয় ভাষ্যে।

        ১৯৩০ সালের ডিসেম্বরে প্রকাশিত ব্রতোঁ ও পল এল্যুয়ার-এর গ্রন্থ L’Immaculée conception এই সময়ের উল্লেখযোগ্য স্যুররিয়ালিস্ট গ্রন্থ।পাঁচটি প্রবন্ধের এই গ্রন্থের ভূমিকায় বলা হয়েছে—এই প্রবন্ধগুলো বিশেষজ্ঞের জন্য, এবং সাধারণ পাঠকের জন্যও। একটির নাম Les Possessions; এখানে আছে নানা ধরনের মানসিক অসুস্থতার কথা—মানসিক দুর্বলতা, ম্যানিয়া, প্যারালিসিস, ভুল বকা ও ডিমেনসিয়ার প্রকোপ। L’Homme (মানুষ)প্রবন্ধটি ছাপা হয়েছে Le Surréalisme au Service de la Révolutionপত্রিকায়। প্রবন্ধটির অংশগুলোর নাম—ধারণা, প্রাক-জন্মকালের জীবন, জন্ম, জীবন, ও মৃত্যু। এই প্রবন্ধগ্রন্থ সম্পর্কে সালভাদর দালি বলেছেন, এইভাবে স্যুররিয়ালিস্ট নিরীক্ষার নতুন পর্যায় পেয়েছে প্রধান চারিত্রিক বৈশিষ্ট, কারণ এই বৈশিষ্টকে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে মানসিক অসুস্থতার ভান হিসেবে। আর এইভাবে আমরা শুধু ‘অটোম্যাটিজম’ ও বস্তুবাদী পথের সঙ্গে সংযোগ নয়, তাদের মধ্যে  সৃষ্ট বাধাগুলোকেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। এই কারণে ‘অটোম্যাটিজম’ শেষ হয়ে যায়নি, বরং আরও স্বাধীনতা পেয়েছে।

ক্রমশ

আরও পড়ুন...

প্রতি মাসে দ্বিতীয় রবিবার